চোখ হারানো সিদ্দিকুরের পক্ষে ক্ষতিপূরণ দাবি করলেন ছাত্রলীগ নেতা


ঢাবি টাইমস
Published: 2017-07-22 17:15:06 BdST | Updated: 2018-09-19 00:27:46 BdST

রাজধানীর শাহবাগে ছাত্র ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের পক্ষে ক্ষতিপূরণ দবি করলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

তিনি বলেন, অনতিবিলম্বে নায়েব আলীর যাবতীয় চিকিৎসা ব্যয় বহন ও পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দেয়া ডিএমপি'র নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করছি!

''ভয়াবহ সেশন জট থেকে পরিত্রাণ চেয়ে, ন্যায্য দাবী নিয়ে রাস্তায় নেমেছিলো ওরা। দাবী পূরণের আশ্বাস নয়, ওদের কপালে জুটলো পুলিশ এর হামলা, লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস! গোলাম রাব্বানী আরো বলেন, সেই হামলায় দুটি চোখই নষ্ট হয়ে গেছে তিতুমীর কলেজের সিদ্দিকুর রহমানের ''

গোলাম রাব্বানী তার ফেসবুকে লিখেছেন, আর ওদের দাবীর বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী মহোদয় কিছু করবেন না, সেটা বুঝে গেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আমাদের সংবিধানে কিন্তু চমৎকার শ্রুতিমধুর একটা লাইন আছে, “রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারীপুরুষ সমান অধিকার লাভ করিবেন”

এদিকে, পুলিশের টিয়ারশেলেই চোখ হারানোর শঙ্কায় সিদ্দিকুর। শনিবারের বিক্ষোভে এরকম দাবি করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তারা একটি ভিডিও দেখিয়ে বলেন, এতে দেখা যাচ্ছে, খুব কাছ থেকে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। যা তার চোখে সরাসারি আঘাত করে। ভিডিওটি ইতিমধ্যে ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে পরেছে।


রাজধানীর শাহবাগে ছাত্র ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের চোখের দৃষ্টি ফিরে পাওয়া নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন চিকিৎসকরা।

চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের গ্লুকোমা বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ডা. ইফতেখার মোহাম্মদ মুনির বলেন, ‘তার দৃষ্টি ফিরে পাওয়া নিয়ে আমরা সন্দিহান।’ তার অধীনেই সিদ্দিকুরের চিকিৎসা চলছে।

সিদ্দিকুর দৃষ্টিশক্তি ফিরে পাবেন কিনা-এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘তার যে ধরনের ইনজুরি রয়েছে তাতে দৃষ্টিশক্তি ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। সম্ভব না বললেই চলে। সে কতটা দেখতে পারবেন তা নিয়ে আমরা সন্দিহান। পরবর্তীতে তার আরও একাধিক অপারেশন দরকার হবে। সে এই মুহূর্তে কেবিনে আমাদের ফলোআপে রয়েছে।’

ডা. ইফতেখার শনিবার বলেন, ‘আঘাতে সিদ্দিকুরের দুটি চোখ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। দৃষ্টিশক্তি সঙ্গে চোখের ভেতরে থাকা কর্নিয়া, জেলসহ নানা বিষয় যুক্ত। সিদ্দিকুরের ডান চোখ থেকে সেসব বের হয়ে এসেছে। আর বাম চোখের ভেতরে সব এলোমেলো হয়ে গেছে। আমরা ডান চোখ অপারেশন করেছি। বাম চোখ ওয়াশ করেছি।’

তবে রোগীর অবস্থা সম্পর্কে এর থেকে বেশি তথ্য দিতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। এর আগে বৃহস্পতিবার (২০ জুলাই) চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের আবাসিক সার্জন ডা. শ্যামল কুমার সরকার বলেছিলেন, ‘সিদ্দিকুর চোখের ভিশন পাচ্ছেন না। আমরা এক্সরে সিটি স্ক্যান করে দেখেছি, তার চোখের পেছনের হাড় ভেঙে গেছে। তার চোখের পাতা প্রচণ্ড ফোলা ছিল।’

সিদ্দিকুরের চোখে কিসের আঘাত ছিল- জানতে চাইলে তিনি জানান, রোগীর সঙ্গে আসা লোকেরা তার চোখে গুলি লেগেছে বলে জানালেও আমরা ভেতরে গুলি পাইনি। প্রাথমিকভাবে আমাদের মনে হয়েছে, লাঠি বা শক্ত কিছুর আঘাতে চোখের পেছনের হাড় ভেঙে গিয়েছে।

এমএসএল

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।