শাবি ছাত্রলীগের আরও দুই নেতা বহিষ্কার


শাবি টাইমস
Published: 2018-03-27 19:02:54 BdST | Updated: 2018-08-15 19:24:45 BdST

নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের দায়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগে একের পর এক নেতা-কর্মী বহিষ্কার যেন নিয়মিত ঘটনা হয়ে উঠছে। সর্বশেষ গত বুধবার মোট ১২ জনকে বহিস্কারের পর সোমবার আরও দুইজনকে বহিস্কার করেছে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ। কক্ষ দখলকে কেন্দ্র করে দুই নেতার সংঘর্ষে একজন ছুরিকাহত হওয়ার ঘটনায় এ দু’জনকে বহিস্কার করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

বহিস্কৃতরা হলেন, শাখা ছাত্রলীগের গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রশিদ রাসেল ও মানব সম্পদ উন্ন্য়ন বিষয়ক সম্পাদক আজমল হোসাইন। তারা উভয়েই শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান খানের অনুসারী।

সোমবার বিকেলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদেরকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিস্কার করা হলো।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ৮ মে শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি গঠন করা হয়। এর পর থেকে এ পর্যন্ত সংঘর্ষ, ভাংচুর, শিক্ষক পেটানো, সাংবাদিক পেটানো, ফাও খাওয়া, যৌন হয়রানিসহ নানা অপরাধ ও অপকর্মের দায়ে প্রায় ২৫-৩০ জন নেতাকর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এর মধ্যে খাদিজাকে কোপানোর ঘটনায় দেশব্যাপী আলোচিত-সমালোচিত বদরুলও এ কমিটির সহ-সম্পাদক ছিলেন।

এক স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় দুই সাংবাদিককে বেড়ধক মারধরের ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থকে অব্যাহিত দেয়ার বিষয়টি ২০১৭ সালের অন্যতম আলোচ্য ঘটনা। এছাড়া এ ঘটনায় পার্থর অনুসারী চার কর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিস্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সর্বশেষ, গত মঙ্গলবার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিশ^বিদ্যালয়ের মূল ফটকের একটি রেস্টুরেন্টে ছাত্রলীগের বিবাদমান দু’গ্রুপের সংঘর্ষে একজন সাধারণ শিক্ষার্থী গুলিদ্ধি হন। এ ঘটনায় বুধবার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য আবু সাঈদ আকন্দ ও সাজিদুল ইসলাম সবুজসহ তাদের অনুসারী ১২জন নেতাকর্মীকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় কমিটি।

অন্যদিকে গত রোববার শাহপরান হলের ৩০৫ নং কক্ষ দখলকে কেন্দ্র করে সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান নাঈমের সঙ্গে গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রসিদ রাসেলের সংঘর্ষ হয়। এসময় ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে নাঈম ছুরিকাহত হন। এ ঘটনায় জড়িত মানব সম্পাদক উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক আজমল হোসাইনকেও বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়াও গত রোববার দিবাগত রাতে সিলেট নগরীর সুবিদ বাজার এলাকায় র‌্যাব-৯ এর অভিযানে বহিস্কৃত এ দু’জনকে আটক করা হয়।

এইচজে/ ২৭ মার্চ ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।