‘ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমারের জয় গণতন্ত্রের জয়’


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2019-04-11 23:34:30 BdST | Updated: 2019-11-22 14:42:37 BdST

বলিউডে থেকেও কেন্দ্রের সব থেকে বেশি সমালোচনা যিনি করেন, তেম নই একজন অভিনেত্রী হলেন স্বরা ভাস্কর। নিজের রাজনৈতিক অবস্থান আরও একবার প্রকাশ্যে এনে সিপিআই প্রার্থী কানহাইয়া কুমারের হয়ে মুখ খুললেন অভিনেত্রী। কানহাইয়া লোকসভা নির্বাচনে জয়ী হলে গণতন্ত্রের জয় হবে বলেই জানিয়েছেন বলিউডের এই মুখ। নিজের ৩১ তম জন্মদিনে বেগুসরাইয়ে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ইউনিয়ন নেতা কানহাইয়ার হয়ে প্রচারে অংশ নেন এই অভিনেত্রী। গতকালই জাতীয় নির্বাচনের জন্য বামপন্থী প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন কানহাইয়া।

স্বরা ভাস্কর বলেন, “এটা একজনের জন্মদিন পালনের এক অসাধারণ উপায়। কানহাইয়া আমার একজন বন্ধু এবং আমি মনে করি তিনি আমাদের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে নেমেছেন। যদি তিনি জেতেন তাহলে তা হবে ভারতীয় গণতন্ত্রের বিজয়।” ৩০ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী আরও বলেন, জনগণের উচিৎ কানহাইয়া কুমারের মতাদর্শের সাথে নিজেকে যুক্ত করা।

অভিনেত্রীর কথায়, “কানহাইয়া সমস্ত ভারতীয়দের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে, সাংবিধানিক মূল্যবোধ এবং ভারতের সংবিধানের উপর আসা হুমকি, বেকারত্ব, জনহিংসার উত্থান, সামাজিক ন্যায়বিচারের প্রয়োজনীয়তা এবং সেই সেই বিষয়গুলিতে মনোনিবেশ করার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কথা বলেন যা জীবনকে উন্নত করবে। আমার মনে হয় কর্তব্যনিষ্ঠ এবং দেশপ্রেমিক ভারতীয় হিসাবে আমাদের সকলের এই মতাদর্শ বা চিন্তাধারার প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত হওয়া উচিৎ।”

গত মাসেই বেগুসরাই আসন থেকে প্রার্থী ঘোষণা করার পর কানহাইয়ার প্রশংসা করেন অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর। কানহাইয়াকে আদর্শবাদী রাজনীতিবিদ এবং অসাধারণ বক্তা বলেও উল্লেখ করেন অভিনেত্রী।

ছাত্র নেতা সম্প্রতি জনগণের কাছে নির্বাচনী প্রচারণার তহবিলে দান করার আহ্বান জানান। তাঁর আবেদনের সঙ্গেসঙ্গেই উপচে পড়া সাড়া মেলে জনগণের কাছ থেকে।

জীবনের প্রথম লোকসভা নির্বাচনে প্রাক্তন জেএনইউ পড়ুয়ার বিরোধী প্রার্থী হলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং, যিনি নওয়াদার টিকিট না পাওয়াতে প্রথমে বেগুসরাইতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে রজিই ছিলেন না। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি নেমে পড়েন মাঠে।

কানাইয়া কুমারকে (৩২), ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রদ্রোহ আইনের অধীনে গ্রেফতার করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয় ক্যাম্পাসে ভারত-বিরোধী স্লোগান তুলেছিলেন তিনি। সোমবার দিল্লি আদালত ২৩ জুলাই পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করে দিল্লি সরকারকে অনুমোদন দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আরও সময় দিয়েছে।

এনডিটিভি অনলাইন