মেয়েদের স্কুলে ৫০ বছরের নীচে শিক্ষক নয়, প্রস্তাব পঞ্জাব সরকারের


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-02-10 00:28:52 BdST | Updated: 2018-08-20 22:49:02 BdST

মেয়েদের স্কুলে শুধুমাত্র পঞ্চাশোর্ধ্ব শিক্ষকদেরই শিক্ষকতা করার প্রস্তাব দিল পঞ্জাবের স্কুল শিক্ষা দফতর। আর এই প্রস্তাবের বিরোধিতায় সুর চড়িয়েছে শিক্ষকদের সংগঠন।জানা গিয়েছে, সাম্প্রতিককালে দেশজুড়ে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানির ঘটনায় কাঠগড়ায় উঠছেন শিক্ষকরা। সেজন্যই এই প্রস্তাব। আজ অর্থাত্ শুক্রবার কলকাতার কারমেল স্কুলেই এক শিশুর সঙ্গে যৌন নির্যাতনে অভিযুক্ত হয়েছেন নৃত্যশিক্ষক।

২০১৮ সালে পঞ্জাবের শিক্ষানীতি সংক্রান্ত প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ৫০ বছর বয়সের নীচে শিক্ষকরা মেয়েদের স্কুলে পড়াতে পারবেন না। প্রস্তাবটি নিয়ে মতামত চাওয়া হয়েছে শিক্ষা দফতরের ওয়েবসাইটে। তবে ইতিমধ্যেই বিরোধিতায় সরব হয়েছেন শিক্ষকরা।

শিক্ষক সংগঠনের সভাপতি সুখবিন্দর চহলের কথায়,''এই প্রস্তাবের নিন্দা করছি আমরা। শিক্ষকদের চরিত্রের উপরে প্রশ্ন তোলা অর্থহীন। তাঁদের কাজ শিক্ষাদান। এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করছি।'' শিক্ষক সমাজের মতে, দু-একজন শিক্ষকদের জন্য গোটা শিক্ষকসমাজকে কাঠগড়ায় তোলা অনুচিত।

যদিও শিক্ষামন্ত্রীর সাফ বক্তব্য, "স্কুলে পুরুষ শিক্ষক না রাখলেই এই ঘটনার সমাধান হয়ে যাবে না। স্কুল কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে নিজেদের গাফিলতি খতিয়ে দেখতে হবে।" একইসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, দ্বিতীয় শ্রেণির শিশুকে যৌননিগ্রহ সাংঘাতিক ঘটনা। এঘটনা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। দোষ প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত কঠোর শাস্তি পাবে। পাশাপাশি, দীর্ঘদিন ধরে এই ঘটনা চললেও স্কুল প্রথমেই কেন কোনও ব্যবস্থা নেয়নি? সেই প্রশ্নও তুলেছেন তিনি।

জিনিউজ 

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।