কেমন আছে থাই গুহায় আটকে পড়া সেই শিশুরা


টাইমস ডেস্ক
Published: 2018-07-12 07:38:01 BdST | Updated: 2018-07-17 01:58:30 BdST

১৭ দিন ধরে বদ্ধ পাহাড়ি গুহায় আটকে থাকা ১৩ জন কিশোর খেলোয়াড়কে উদ্ধারের অভিযানটি ছিল অত্যন্ত বিপজ্জনক। সামান্য ভুল হলেই কাউকে প্রাণে বাঁচানোর উপায় ছিল না। সর্বশেষ অভিযানে বাধ্য হয়েই কিশোরদের উত্তেজনানাশক ওষুধ প্রয়োগ করে তাদের ভয়-ভীতি দূর করে স্বাভাবিক রাখতে হয়েছিল।

এই কিশোরদের সফলভাবে উদ্ধার করতে পারায় শুধু থাইল্যান্ড নয়, বিশ্বজুড়ে বিশেষত খেলোয়াড় মহলে নেমে এসেছে দারুণ স্বস্তি। বিশ্ব মিডিয়ায় এ খবর গুরুত্ব সহকারে প্রচার পেয়েছে। সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান, দ্য টেলিগ্রাফ, দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট, বিবিসি।

উদ্ধারকারী ব্যক্তিরা জানান, কিশোরদের গুহা থেকে বের করে আনাটা ছিল বিপজ্জনক। তাদের শান্ত রাখতে উত্তেজনা প্রশমনকারী ওষুধ খাওয়ানো হয়েছিল। এরপর তাদের গুহা থেকে একে একে বের করে আনেন ডুবুরিরা।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, থাইল্যান্ডের ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে দুর্গম থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধার করেন ডুবুরিরা। সেখানে ১৭ দিন অন্ধকারে আটকে ছিল তারা। সাঁতার জানত না কেউ। তাদের জীবনের শঙ্কা তৈরি হয়েছিল। তারা বলেন, থাম লুয়াং গুহার কঠিন চ্যালেঞ্জ হলো যাত্রা শুরুর কাছাকাছি এলাকায় পানিতে ডুবে থাকা একটি পয়েন্ট যার উচ্চতা ৩৮ সেন্টিমিটার আর এটি মাত্র ৭২ সেন্টিমিটার প্রশস্ত। ফলে কিশোরদের মাস্ক পরিয়ে ডুবুরিদের তত্ত্বাবধানে বের করে আনা হয়। কাদা-পানির মধ্যে যেভাবে ফ্ল্যাশলাইটের আলোও দেখা যায় না, এমন পরিস্থিতির মধ্যে মাথা ঠাণ্ডা রেখে সাবধানে শিশুদের বের করে এনেছেন তারা। কিশোরদের ওষুধ প্রয়োগ করা সম্পর্কে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রাউত চান-ওচা বলেছেন, কিশোরদের উদ্বেগনাশক ওষুধ দেওয়া হয়েছিল। তবে তারা অচেতন হয়নি।

ব্যাংককে এক সংবাদ সম্মেলনে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের ক্লোরোফর্ম দিয়ে অজ্ঞান করা হয়নি। ক্লোরোফর্ম দিলে তারা বাইরে এলো কীভাবে? এটাকে বলা হয় অ্যাংসিওলাইটিক। যাতে তারা উত্তেজিত না হয়।’

আনন্দে শামিল সারা বিশ্ব : থাইল্যান্ডের আনন্দে শামিল হয়েছে গোটা বিশ্বও। আন্তর্জাতিক সংবাদপত্রগুলোতে এ অভিযানের সফলতা নিয়ে উল্লাস দেখা গেছে। বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধানরাও শিশু ফুটবলার ও উদ্ধারকারীদের অভিনন্দন জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিয়েছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটার পেজে একটি পোস্ট দেওয়া হয়েছে। তিনি লিখেছেন— ‘খুব সুন্দর একটি মুহূর্ত। সবাই মুক্ত হয়েছে, দারুণ!’ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে, আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ক্যাট্রিন জ্যাকবসদোত্তির ও সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সেইন লুংও উদ্ধারকারীদের অভিনন্দন জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিয়েছেন।

এসএম/ ১২ জুলাই ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।