হার্ভার্ডের পাঠ্যবইয়ে বাংলাদেশি রাজুব ভৌমিকের লেখা


Dhaka
Published: 2019-11-11 22:50:48 BdST | Updated: 2019-12-14 02:39:31 BdST

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিকতা বিভাগের স্নাতকোত্তর পাঠ্যপুস্তকে স্থান পেল বাংলাদেশি-আমেরিকান সাংবাদিক ও নিউইর্য়ক সিটি পুলিশের কর্মকর্তা ড. রাজুব ভৌমিকের লেখা। বইটির নাম “জার্নালিস্ট অব টুডে: প্রোফাইলস ইন প্যাশন এ্যান্ড ডাইভার্সিটি”।

বইটি সম্পাদনা করেছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এবং সাংবাদিক জুন ক্যারোলাইন আর্লিক। এই বইটি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগে নিয়মিত পাঠ্য হিসেবে ব্যবহৃত হবে বলে আর্লিক জানান। হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধানে প্রকাশিত এই বইটি এখন অ্যামাজনে পাওয়া যাচ্ছে। মূল্য ১৬ ডলার।

আরও জানা যায়, সংবাদপত্রের ফিচার এবং প্রোফাইল নিয়ে লেখা এই বই ‘নিউজ রাইটিং এবং প্রোসেমিনার ইন জার্নালিজম স্টাডিজ’ মাস্টার্স কোর্সে এখন থেকে ব্যবহৃত হবে।

বইয়ের সম্পাদক অধ্যাপক জুন ক্যারোলাইন আর্লিক বলেন, ‘হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের কতিপয় মেধাবী ছাত্রছাত্রীর লেখা একটি বই। নিঃসন্দেহে হার্ভার্ডের সাংবাদিকতা বিভাগের ভবিষ্যৎ ছাত্রছাত্রীদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ একটি বই বলে সমাদৃত হবে। এই বই থেকে ভবিষ্যত শিক্ষার্থীরা অনেক কিছু শিখতে পারবে।’

রাজুব ভৌমিক যুক্তরাষ্টে কর্মরত সাংবাদিকদের সমন্বয়ে ‘আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব’র একজন সদস্য। বাংলাদেশের বিভিন্ন বেসরকারি প্রিন্ট মিডিয়ায় নিমিতভাবে লেখালেখি করছেন তিনি।

উল্লেখ্য, সাংবাদিক ও কবি রাজুব ভৌমিকের জন্ম নোয়াখালী জেলার কবিরহাট থানার শ্রীনদ্দি গ্রামে। ওটার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তার শিক্ষাজীবনের যাত্রা শুরু হয়। বসুরহাটে সরকারি মুজিব কলেজে তিনি উচ্চ-মাধ্যমিক শেষ করেন। গত পাঁচ বছর ধরে নিউইর্য়কে সিটি ইউনিভার্সিটির জন জে কলেজে তিনি অপরাধবিদ্যা, আইন ও বিচার বিভাগে এবং হসটস কলেজে মনস্তাত্তিক বিভাগে অধ্যাপনা করছেন।

একইসঙ্গে গত সাত বছর ধরে পেশায় একজন পুলিশ অফিসার হিসেবে নিউইর্য়ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্ট (এনওয়াইপিডি) এ কাউন্টার টেরোরিজমে কর্মরত আছেন। তার প্রকাশিত মোট গ্রন্থের সংখ্যা ২০টিরও বেশি। নিউইয়র্কের সিটি ইউনিভার্সিটিতেও তার প্রকাশিত তিনটি বই পাঠ্যপুস্তক হিসেবে নিয়মিত পড়ানো হয়।

লেখক রাজুব ভৌমিক এই বইটি সম্পর্কে জানান, ‘এই প্রজেক্টটি নিয়ে আমরা সবাই বহুদিন নিরলসভাবে কাজ করেছি। আশা করি বইটি হার্ভার্ডের সাংবাদিকতা বিভাগের ভবিষ্যত ছাত্রছাত্রীদের জন্য অনেক উপকারে আসবে। আবার যারা ফিচার লিখতে আগ্রহী তারাও এই বইটি কিনতে পারেন।’