ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে এবার মাথা ফাটলো রাবি প্রক্টরের


RU Correspondent | Published: 2022-09-15 17:47:32 BdST | Updated: 2022-12-03 04:21:36 BdST

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) চলমান আন্তঃবিভাগ ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে ঝামেলা সৃষ্টি হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে স্টেডিয়ামের মূল ফটকের সঙ্গে ধাক্কা লেগে মাথায় আঘাত হয়েছেন প্রক্টর অধ্যাপক ড. আসাবুল হক।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ কামাল স্টেডিয়ামে রসায়ন ও আইন বিভাগের মধ্যকার খেলায় এ ঘটনা ঘটে।

 

আহত প্রক্টরকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেলে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে দুটি সেলাই দেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রসায়ন বিভাগ বনাম আইন বিভাগের খেলায় প্রথম পর্যায়ে রসায়ন বিভাগ ১ গোল করে এগিয়ে থাকে। খেলার শেষ সময়ে আইন বিভাগ ১টি গোল করে খেলা ড্র করে। পরবর্তী সময়ে টাইব্রেকার শুরু হলে রসায়ন বিভাগ দুটি গোল দেয় এবং আইন বিভাগ দুটি শট মিস করে। রসায়ন বিভাগের তৃতীয় শটটি গোলবারে ঢুকে বের হয়ে যায় কিন্ত রিফারির সিদ্ধান্ত মোতাবেক গোল ধরা হয়। আইন বিভাগের দাবি, বল গোলবারে ঢোকেনি। এ নিয়ে আইন বিভাগের সঙ্গে রেফারির বাকবিতণ্ডা হয়।

 

খবর পেয়ে স্টেডিয়ামে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক। তিনি দরজা দিয়ে ঢুকতে গেলে পেছন থেকে আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা জোরে দরজা ধাক্কা দেন। এতে দরজার আঘাতে মাথা ফেটে আহত হন প্রক্টর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সহযোগী ড. আরিফুর রহমান বলেন, খেলা শেষ হলে গ্যালারিতে অবস্থানরত আইন বিভাগের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা রেফারির কাছে জবাবদিহিতার জন্য স্টেডিয়ামের তালাবদ্ধ মেইন গেট জোর করে খোলার চেষ্টা করেন। স্টেডিয়ামে গেট দিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রবেশের সময় প্রক্টরও প্রবেশ করছিলেন। শিক্ষার্থীরা গেট জোরে টান দেওয়ায় দরজায় ধাক্কা লেগে প্রক্টরের মাথা ফেটে যায়। তবে ইচ্ছা করে আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা তার মাথায় আঘাত করেননি বলে জানান তিনি।

 

আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক হাসিবুল আলম প্রধান জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রক্টরের সঙ্গে যা ঘটেছে, তা একটি দুর্ঘটনা। তবে খেলাধুলা সম্প্রীতি বজায় রাখার একটি মাধ্যম। তাই খেলাধুলা করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এমন কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা কাম্য নয়।’

এরআগে, রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তঃবিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টে চলাকালে কৃষি অনুষদভুক্ত ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্স বিভাগ ও আইবিএ ইনিস্টিউটের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ সময় আইবিএ শিক্ষার্থী সিনহার বিরুদ্ধে ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্স বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক মোইজুর রহমানকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় ওইদিনই একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।