বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পেলেন এক কলেজের ১৬ শিক্ষার্থী


Desk report | Published: 2022-07-02 12:42:47 BdST | Updated: 2022-08-14 22:21:06 BdST

নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ থেকে এ বছর মেধা তালিকায় ৫ম স্থানসহ ১৬ জন শিক্ষার্থী বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) রাতে বুয়েটের ২০২১-২২ ব্যাচের স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর দেখা গেছে, সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজর ১৬ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। এর মধ্যে একজন মেয়ে ও ১৫ জন ছেলের নাম রয়েছে।

কলেজটি থেকে প্রতিবছর উত্তীর্ণ বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী শুধু বুয়েটে নয় বিভিন্ন মেডিকেল কলেজসহ বিশ্ববিদ্যালয়েও ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন। রেকর্ড পরিমাণ শিক্ষার্থী বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পাওয়ায় সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে। প্রতিবছর এই কলেজের সাফল্যের কারণে চলতি বছরের ১৬ মার্চ শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি কলেজটি ঘুরে গেছেন।

এ বছর বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পাওয়া ১৬ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে নাহিদ হোসেন রিদম ৫ম হয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, সঞ্জয় কুমার সেন ১৬১তম হয়ে তড়িৎ ও বৈদ্যুতিন প্রকৌশল বিভাগে, ইমন ইসলাম ৪৪৪তম হয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, আরাফাত আফ্রিদি রোমান ৫২৬ তম হয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, আবু সায়েম ৫৩০তম হয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, আরিফ শাহরিয়ার সজীব ৫৭০তম হয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, তাহমিদ আহমেদ তনয় ৬৩৯তম হয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, মাহমুদুল হাসান ৬৪০তম হয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, মাহবুব ইসলাম ৭৬২তম হয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, গোলাম আজম ৭৬৬তম হয়ে শিল্প ও উৎপাদন প্রকৌশল বিভাগে, নবদ্বীপ চন্দ্র রায় ৮০৮ হয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, এস এম সিয়াম মাহিম ৯৫৩তম হয়ে শিল্প ও উৎপাদন প্রকৌশল বিভাগে, সুদীপ্ত চন্দ্র রায় কেলভিন ৯৮৯তম হয়ে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে, এম এ এইচ কে লাবিব ১০৮৬তম হয়ে বস্তু ও ধাতবকৌশল বিভাগে, শামসুজ্জামান সাফিন ১১১৬তম হয়ে বস্তু ও ধাতবকৌশল বিভাগে ও জাকিয়া সুলতানা জীম ১২০৩তম হয়ে নেভাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন।

নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম আহমেদ ফারুক এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সৈয়দপুর শহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারি বিজ্ঞান কলেজ। বরাবরই এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় ভালো ফল করেন এই কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিংসহ বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা মেধার স্বাক্ষর রাখেন। এ বছরই আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে ৩৯ জন মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। গত বছরও ১১জন বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পেয়েছিল। প্রতিবছরই আমাদের ভালো করার প্রাণান্তর চেষ্টা থাকে। আমরা সেভাবেই শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করে থাকি। এবার ১৬ শিক্ষার্থী বুয়েটে সুযোগ পেয়েছে। শিক্ষার্থীদের এই অর্জনে আমরা গর্বিত।

অধ্যক্ষ গোলাম আহমেদ ফারুক বলেন, করোনাকালে আমরা মুখোমুখি ক্লাস নিতে পারিনি। তবে আমাদের শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস চালু ছিল। নিয়মিত তদারকি ছিল। এ ব্যাপারে ভালো সহযোগিতা পেয়েছি অভিভাবকদের। শিক্ষার্থী-শিক্ষক ও অভিভাবকদের সম্মিলিত চেষ্টায় আমরা ধারাবাহিক সাফল্য দেখাতে পারছি।

বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় ৫ম স্থান অধিকারী নাহিদ হোসেন রিদম বলেন, আমাদের কলেজের শিক্ষকরা অনেক আন্তরিক। আমি শিক্ষকদের মানবিক আচরণে মুগ্ধ। তাদের উৎসাহ ছিল বলেই আজ আমার এই অর্জন। আমি শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য, নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের আগের নাম ছিল সরকারি কারিগরি মহাবিদ্যালয় (টেকনিক্যাল কলেজ)। ২০১৯ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় নাম পরিবর্তন করে সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ নাম রাখে। কলেজটিতে কেবলমাত্র বিজ্ঞান বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে।

১৯৬৪ সালে দেশের চারটি শিল্পাঞ্চলে টেকনিক্যাল স্কুল গড়ে ওঠে। দেশের সর্ববৃহৎ সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার সুবাদে এখানেও গড়ে ওঠে টেকনিক্যাল স্কুল। উদ্দেশ্য ছিল এখান থেকে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার জন্য দক্ষ, কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন শিক্ষার্থী গড়ে তোলা। পরে ১৯৭৭ সালে প্রতিষ্ঠানটি কলেজে উন্নীত হয়।