গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা গেছেন ১৬৬ জন


Dhaka | Published: 2021-07-23 18:48:04 BdST | Updated: 2021-09-17 12:55:18 BdST

দেশে করোনা সংক্রমণে মৃত্যু কিছুটা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে আজ শুক্রবার সকাল আটটা পর্যন্ত) করোনায় মারা গেছেন ১৬৬ জন। মৃত্যুর এই সংখ্যা গত ১৭ দিনের মধ্যে সবচেয়ে কম।

দেশে করোনার ডেলটা ধরনের দাপটের মধ্যে গত ৭ জুলাই প্রথম দৈনিক মৃত্যু ২০০ ছাড়ায়। এরপর থেকে গত ২০ জুলাই পর্যন্ত অধিকাংশ দিন মৃত্যু ছিল ২০০-এর ওপরে। গত ১৯ জুলাই একদিনে সর্বোচ্চ ২৩১ জনের মৃত্যুর খবর আসে।

সেখানে গত তিন দিন ধরে মৃত্যু ২০০ এর নিচে রয়েছে। আগের ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছিল ১৮৭ জনের, তার আগের দিন মৃত্যু হয় ১৭৩ জনের। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টার চেয়ে কম মৃত্যুর খবর এসেছিল গত ৬ জুলাই, ১৬৩ জনের।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের তুলনায় নমুনা পরীক্ষা কিছুটা বেড়েছে। ফলে নতুন রোগী শনাক্তও আগের দিনের চেয়ে বেশি হয়েছে, ৬ হাজার ৩৬৪ জন। শুক্রবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ২০ হাজার ৪৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৩১ দশমিক ০৫ শতাংশ।

আগের দিন নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল ১১ হাজার ৪৮৬ জনের, রোগী শনাক্ত হয়েছিল ৩ হাজার ৬৯৭ জন।

সব মিলিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ১৮ হাজার ৮৫১ জনের। করোনা সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৪৬ হাজার ৫৬৪ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৯ লাখ ৭৮ হাজার ৬১৬ জন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন ৩৩ জন করে। বাকিরা অন্যান্য বিভাগের। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা যাওয়া ১৬৬ জনের মধ্যে ৯৫ জন পুরুষ, নারী ৭১ জন।

দেশে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে চলতি মাসের প্রথম দুই সপ্তাহ সর্বাত্মক বিধিনিষেধ পালন করা হয়। এ সময় সব ধরনের অফিসের পাশাপাশি গণপরিবহন চলাচলও বন্ধ রাখা হয়। ঈদুল আজহা উপলক্ষে এই বিধিনিষেধ আট দিনের জন্য শিথিল করা হয়েছিল। সে সময় শেষ হওয়ায় আজ শুক্রবার সকাল থেকে আবার কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। দুই সপ্তাহ ধরে এই লকডাউন চলবে।

চীনের উহানে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়। কয়েক মাসের মধ্যে এই ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। এরপর বিভিন্ন সময়ে সংক্রমণ কমবেশি হলেও মাসখানেকের বেশি সময় ধরে দেশে করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক অবস্থায় পৌঁছেছে। দেশে করোনার ডেলটা ধরনের দাপটে দৈনিক সংক্রমণ এবং করোনায় মৃত্যু কয়েক গুণ বেড়েছে।