কলেজ ক্যাম্পাস কবে মুখরিত হবে?


ঢাকা | Published: 2021-04-23 16:28:41 BdST | Updated: 2021-09-17 14:07:38 BdST

কে এম নেছার উদ্দিন
বিএএফ শাহিন কলেজ,তেজগাঁও, ঢাকা।

দেশের করোনার প্রথম ঢেউ শেষ না হতেই দ্বিতীয় ঢেউ চলছে, তাহলে প্রশ্ন থেকেই যায় ভবিষ্যতে কি ৩য়, ৪র্থ ঢেউ আসবে না? ১ম ধাপে দেশের সকল সেক্টরের ওপরে প্রভাব পড়লেও ২য় ধাপে শুধু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তথা ছাত্র ছাত্রীদের ওপরে বেশী প্রভাব পড়ছে।

কাক ডাকা ভোরে উঠেই কোনোদিন নাস্তা খেয়ে আবার কোনোদিন না খেয়ে ক্যাম্পাসে ছুটতেন সকল শিক্ষার্থী। সারাদিন ক্লাস, অ্যাসাইনমেন্ট, লাইব্রেরি ওয়ার্ক ও বন্ধুদের সঙ্গে গল্প-গুজব করে শেষ বিকেলে বাসায় ফেরাই ছিল তাদের দৈনন্দিন রুটিন। কিন্তু করোনার কারণে গত একবছর বেশি সময় ধরে শিক্ষার্থীরা বলতে গেলে গৃহবন্দি অবস্থায় সময় কাটাচ্ছেন। এবারে নববর্ষের প্রথম দিনে এবং গতবছর নববর্ষে ক্যাম্পাসে এমন নিষ্প্রাণ চিত্র অতীতে কখনো ঘটেনি। এভাবে অনেক অনুষ্ঠান ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী মিস করছে।

কলেজ ডে-পহেলা মার্চ সেদিন শাহীনের ক্যাম্পাসে আনন্দে মেতে উঠে. সেটি করোনার জন্য এবার কলেজ ক্যাম্পাসে মেতে উঠতে পারিনি।

আজও ক্যাম্পাসে সুনশান নীরবতা। মহামারি করোনা সব কিছু বদলে দিয়েছে। সৃষ্টিকর্তা-ই ভালো জানেন, মহামারি কাটিয়ে শিক্ষার্থীদের পদচারণায় কবে আবার শাহীন ক্যাম্পাস মুখরিত হয়ে উঠে।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত ও ১৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। এরপর ১৮ মার্চ থেকে কলেজ ক্যাম্পাস বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে ক্যাম্পাসে কাক ডাকা ভোরে উঠে ক্যাম্পাসে এসে হাজির হওয়া আড্ডা দেয়া শিক্ষকদের সাথে প্রতিদিন দেখা হওয়া বন্ধ হয়ে যায়। যা এখনো পর্যন্ত ক্যাম্পাস খোলার কোন অবস্থা দেখা মিলছে না! কবে খুলবে আবার কবে কাক ডাকা ভোর সকালে ক্যাম্পাসে যাওয়া শিক্ষক বন্ধুদের সাথে দেখা আড্ডা হওয়া শুরু হবে? কোন নিশ্চয়তা নেই! ১৮ মার্চ ২০ সাল হতে ক্যাম্পাস তার চিরায়ত রূপ হারিয়ে জনশূন্য-নিষ্প্রাণ পরিণত হওয়ার বছর মাস পেরিয়ে গেলেও একই অবস্থা বিরাজ করছে।