শুধু কর্মবিরতি নয়, অবস্থান কর্মসূচিও করবে ইবি শিক্ষকরা


Desk report | Published: 2024-06-24 20:01:27 BdST | Updated: 2024-07-15 03:11:55 BdST

অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত সর্বজনীন পেনশন স্কীম সংক্রান্ত নীতিমালার প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, প্রতিশ্রুত সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তিকরণ ও শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতনস্কেল প্রবর্তনের দাবিতে ফের কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা দিয়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষক সমিতি। কর্মবিরতির পাশাপাশি প্রতিদিন এক ঘন্টা অবস্থান কর্মসূচিরও ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষকরা। ঈদুল আযহার ছুটির আগেও একই দাবিতে কয়েক দফায় মানববন্ধন ও কর্মবিরতি করেন শিক্ষকরা।

সোমবার (২৪ জুন) ইবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এসব তথ্য জানানো হয়। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের ঘোষণা অনুযায়ী শিক্ষক সমিতি এ কর্মসূচি পালন করবেন।

প্রজ্ঞাপন সূত্রে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত পেনশন সংক্রান্ত বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, অষ্টম জাতীয় বেতনস্কেল সংশোধনের দাবিতে আন্দোলনকালে প্রতিশ্রুত সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতনস্কেল প্রবর্তনের দাবিতে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন আগামী ২৫, ২৬, ও ২৭ তারিখে অর্ধদিবস কর্মবিরতি এবং প্রতিদিন এক ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি উক্ত কর্মসূচির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অনুষদ ভবনের নিচতলায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে। তবে পরীক্ষাসমূহ কর্মবিরতির আওতামুক্ত থাকবে।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান বলেন, ফেডারেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছি। আগামী ৩০ জুন আমরা দিনব্যাপী কর্মবিরতি পালন করবো। পরীক্ষাসমূহ এর আওতার বাইরে থাকবে। এতেও দাবি না মানা হলে আমরা পহেলা জুলাই থেকে সর্বাত্মক কর্মবিরতি করবো৷ ক্লাস-পরীক্ষাসহ যাবতীয় একাডেমিক কার্যক্রম আমরা বর্জন করবো।

এরআগে গত ২৬ মে তিন দাবিতে মানববন্ধন করেন শিক্ষকরা। পরে ২৮ মে দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি করেন তারা। এছাড়া ৪ জুন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অর্ধদিবস কর্মবিরতিতে যান শিক্ষকরা। তবে পরীক্ষাসমূহ এ কর্মসূচির আওতামুক্ত ছিল।