বুয়েট ভর্তিতে পদার্থ-রসায়নে ৯৩ শতাংশ নম্বরের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে রিট


Desk report | Published: 2022-04-19 18:19:31 BdST | Updated: 2022-06-29 05:43:10 BdST

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় পদার্থবিদ্যা ও রসায়নের প্রতিটিতে অন্তত ৯৩ শতাংশ নম্বর পেতে হবে। ভর্তিচ্ছুদের ওপর আরোপিত এমন শর্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেছেন সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী।

আজ মঙ্গলবার আইনজীবী মো. ইউনুস আলী আকন্দ জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট আবেদনটি করেন। বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় এ বছর মাত্র ২০ হাজার আবেদনকারীকে সুযোগ দেওয়ার বিষয়েও চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে এই রিটে।

আবেদনে তিনি গত ১৬ এপ্রিল দৈনিক প্রথম আলোতে প্রকাশিত বুয়েটের বিজ্ঞাপন স্থগিত করতে হাইকোর্টকে অনুরোধ করেন।

পিটিশনের উদ্ধৃতি দিয়ে ইউনুস আলী আকন্দ বলেন, বিজ্ঞাপন অনুযায়ী একজন শিক্ষার্থীকে এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় পদার্থবিদ্যা ও রসায়নে মোট ৪০০ নম্বরের মধ্যে ৩৭২ নম্বর পেতে হবে বুয়েটে ভর্তির জন্য। এর অর্থ, এই ২ বিষয়ে ৯৩ শতাংশ নম্বর পেতে হবে, যা অযৌক্তিক এবং গ্রেড পয়েন্ট এভারেজের (জিপিএ) সঙ্গে সাংঘর্ষিক। তাই, অপ্রীতিকর এই বিজ্ঞাপনটি অবৈধ ঘোষণা করা উচিত।

আইনজীবী ইউনুস রিট আবেদনে বলেন, বুয়েট সাধারণত ভর্তির বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে এই শর্তে যে শিক্ষার্থীদের গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন ও ইংরেজিতে জিপিএ-৫ পেতে হবে। কিন্তু পদার্থবিদ্যা ও রসায়নে ৯৩ শতাংশ নম্বর পেতে হবে, এমন শর্ত কখনো অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

বুয়েটে ভর্তিচ্ছুদের ৯৩ শতাংশ নম্বর পাওয়ার শর্ত সংবিধানের ২৮(৩) ও ৩১ অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

২৮(৩) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, 'কেবল ধর্ম,গোষ্ঠী,বর্ণ,নারী-পুরুষভেদে বা জন্মস্থানের কারণে জনসাধারণের কোন বিনোদন বা বিশ্রামের স্থানে প্রবেশের কিংবা কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির বিষয়ে কোন নাগরিককে কোনরূপ অক্ষমতা, বাধ্যবাধকতা, বাধা বা শর্তের অধীন করা যাইবে না।'

৩১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, 'আইনের আশ্রয়লাভ এবং আইনানুযায়ী ও কেবল আইনানুযায়ী ব্যবহারলাভ যে কোন স্থানে অবস্থানরত প্রত্যেক নাগরিকের এবং সাময়িকভাবে বাংলাদেশে অবস্থানরত অপরাপর ব্যক্তির অবিচ্ছেদ্য অধিকার এবং বিশেষতঃ আইনানুযায়ী ব্যতীত এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাইবে না, যাহাতে কোন ব্যক্তির জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, সুনাম বা সম্পত্তির হানি ঘটে।ইউনুস আলী বলেন, মাত্র ২০ হাজার পরীক্ষার্থীকে ভর্তি পরীক্ষার অনুমতি দিলে অন্যরাও ভর্তি হতে বঞ্চিত হবে, যা অসাংবিধানিকও বটে।'

আইনজীবী ইউনুস জানান, আজ বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।