রাবিতে দুই বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে হাতাহাতি


RU Correspondent | Published: 2023-01-17 04:56:26 BdST | Updated: 2024-02-21 10:24:59 BdST

নিজ বিভাগের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এতে এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়।

গতকাল রোববার (১৫ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স ও মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মণ্ডলের মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে, ওইদিন সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বরে দুই বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় আহত শিক্ষার্থী ৫ জনের নাম উল্লেখ করে হামলার বিচার ও নিরাপত্তা চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। আহত ওই শিক্ষার্থীর নাম আল ফারাবি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র।

অপরদিকে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা হলেন মার্কেটিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী জয়, ফরহাদ, রাফি, সান, হাসিব এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন, কারুশিল্প ও শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র অন্তর।

লিখিত অভিযোগে ফারাবি উল্লেখ করেন, গতকাল রোববার সন্ধ্যায় টুকিটাকি চত্বরে চা খাওয়ার সময় মার্কেটিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের জয়, ফরহাদ এবং রাকিবের সাথে বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে জয়, ফরহাদ, রাফি নিজেদের রাজশাহীর স্থানীয় দাবি করে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়।

পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে অভিযুক্ত অন্তর ফারাবিকে ফোন করে মণ্ডলের মোড়ে আসতে বলে। ফারাবি সেখানে আসা মাত্রই অন্তর কিছু স্থানীয় ছেলে নিয়ে এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি এবং লাঠি দিয়ে ফারাবিকে মারতে শুরু করে। এসময় জয়, ফরহাদ ও রাফিও তাকে মারধর করেন। পরে আহত অবস্থায় ফারাবির কয়েকজন বন্ধু তাকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি করান।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুই বিভাগের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে তর্কবিতর্ক হয়। পরে দুই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য টুকিটাকি চত্বরে আলোচনায় বসে। এসময় দুই পক্ষের সাথে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে আল ফারাবিসহ কয়েকজনকে ডেকে নিয়ে স্থানীয়দের সাথে নিয়ে তাদেরকে মারধর করেন অভিযুক্তরা। মূলত সংঘর্ষ দুই বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ হলেও অন্য বিভাগের জয়ের স্থানীয় বন্ধুরাও এ ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত জয়ের মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন ‘এই বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করতে বাধ্য নই’। অন্য অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, শিক্ষার্থীকে মারধরের একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

//