চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতেন ভুয়া শিক্ষার্থী রাব্বি, করতেন ছাত্রলীগ


CU Correspondent | Published: 2024-06-01 11:54:24 BdST | Updated: 2024-07-15 03:01:46 BdST

ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হয়েও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দিয়ে করতেন ক্লাস। থাকতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ আব্দুর রব হলে। ছাত্রলীগকর্মী পরিচয়ে অংশ নিতেন মিছিল-মিটিংয়ে। অভ্যন্তরীণ কোন্দল বা মারামারিতে দেখা যেতে সম্মুখে। কিন্তু তার সব পরিচয়ই ছিল ভুয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্সই পাননি তিনি।

নিজেকে চবি শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেওয়া ওই যুবকের নাম রাব্বি মিয়া। তবে নিজেকে ইমন হাসান রাব্বি নামে পরিচয় দিতেন। দাবি করতেন ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী হিসেবে।

সম্প্রতি উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় ২৩ ছাত্রলীগকর্মীকে শোকজ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই ২৩ জনের একজন রাব্বি মিয়া। শোকজের বিষয়ে তদন্ত করতে গেলে বের হয়ে আসে তার এসব তথ্য। অভিযুক্ত রাব্বি মিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ইতিহাস বিভাগের ৫৭তম ব্যাচের সঙ্গে ক্লাস করতেন। নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষায় অংশও নিতেন। ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সিএফসি গ্রুপের সক্রিয় কর্মী।

ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ইমন হাসান রাব্বি বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্লাস ও পরীক্ষায় অংশ নিয়ে আসছিলেন। ক্যাম্পাসেও শিক্ষার্থী হিসেবেই পরিচয় দিতেন। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) বিভাগের ২০২ নম্বর কোর্সের টিউটোরিয়াল পরীক্ষা চলাকালীন বিভাগের শিক্ষক তাকে হাজিরা খাতায় সই দিতে বলেন। তবে তিনি তার নাম ও আইডি নম্বর বলতে পারেননি। পরবর্তী সময়ে অফিস কক্ষে নিয়ে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ‘ভুয়া শিক্ষার্থী’ হিসেবে তথ্য উঠে আসে। এর আগেই ভুয়া ছাত্র হিসেবে তাকে শনাক্ত করে ইতিহাস বিভাগে চিঠি দেয় প্রক্টরিয়াল বডি।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত রাব্বি মিয়াকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর থেকে তার ফেসবুক আইডিও নিষ্ক্রিয় রেখেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মোহাম্মদ রিফাত রহমান বলেন, ‘উপজেলা নিবার্চনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় শোকজ করা ২৩ জনের বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে রাব্বি মিয়াকে (ইমন হাসান রাব্বির) ভুয়া ছাত্র হিসেবে শনাক্ত করতে সক্ষম হই। প্রাথমিকভাবে আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারি, সে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের গড়াইল জব্বারনগরের বাসিন্দা। সে গফরগাঁও সরকারি কলেজে পড়াশোনা করতো।’

তার বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেহেতু সে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী না, তাই আমরা হাটহাজারী থানায় তার ব্যাপারে অভিযোগ করবো। গফরগাঁও পুলিশের সহায়তায় তাকে ধরে সব তথ্য নেওয়া হবে। তার সঙ্গে আরও কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সে কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হবে।’

গত ২১ মে দুপুরে ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে চবি শাখা ছাত্রলীগের দুই উপগ্রুপ সিএফসি ও বিজয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওইদিন সন্ধ্যায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সংঘর্ষের তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে ২৩ জনকে শোকজ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।