ব্রহ্মপুত্রে ডুবে প্রাণ গেল ঢাবি শিক্ষার্থীর


টাইমস প্রতিবেদক | Published: 2021-07-02 10:26:05 BdST | Updated: 2021-07-24 04:54:42 BdST

জামালপুরের ইসলামপুরে ব্রহ্মপুত্র নদে গোসলে নেমে পানিতে ডুবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মেধাবী শিক্ষার্থী হাসানুল ইসলাম সিয়ামের (২৩) মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (০১ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার বীর উত্তম খালেদ মোশারফ সেতু এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ডুবুরি সঙ্কটের কারণে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার দল ঘটনাস্থলে না যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে স্থানীয়রা রাত ৯টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করে। এর আগে বিকেলে দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ওই সেতুতে বেড়াতে গিয়েছিলেন সিয়াম।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের লোক প্রশাসন বিভাগের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির শিক্ষার্থী সিয়াম জামালপুরের ইসলামপুর পৌরসভার কিংজাল্লা গ্রামের বাসিন্দা ও সরকারি নেকজাহান পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মো. উমর আলীর ছেলে। সিয়াম এসএসসিতে জিপিএ-৫ এবং এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৪.২৯ পেয়েছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় ঘ-ইউনিটে তিনি মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সিয়াম বৃহস্পতিবার বিকেলে তার দুই বন্ধুকে নিয়ে ইসলামপুরের বীর হাতিজা এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের বীর উত্তম খালেদ মোশারফ সেতুতে ঘুরতে যায়। পরে সেতু থেকে নেমে স্থানীয় পাইলিং ঘাটে গোসল করতে নামেন তারা। এ সময় সিয়াম পানিতে ডুবে নিখোঁজ হন। তার দুই বন্ধু অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজির পর তাকে না পেয়ে বাড়িতে খবর দেন।

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর অঙ্কন কর্মকার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে ইসলামপুর ফায়ার সার্ভিসে ফোন করে সিয়ামকে উদ্ধারের জন্য ডুবুরি পাঠাতে বলেন। কিন্তু ডুবুরি না থাকায় ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কাজে যায়নি। পরে সিয়ামের পরিবারের স্বজনরাসহ স্থানীয় বিপুল সংখ্যক লোক নদীতে জাল ফেলে সিয়ামের অনুসন্ধানে নামে। রাত ৯টার দিকে সেতুর কাছেই এক ব্যক্তির জালে আটকা পড়ে সিয়ামের দেহ। পরিবারের স্বজনরা তাকে ইসলামপুর উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর অঙ্কন বলেন, সিয়াম পানিতে ডুবে নিখোঁজ হওয়ার কথা জানতে পেরে প্রথমেই আমি ইসলামপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তাকে জানাই। ডুবুরি নাই বিধায় তারা সেখানে আসবে না বলে জানান। ডুবুরি দল না যাওয়ায় স্থানীয়রা প্রায় দুই ঘন্টা অনুসন্ধান চালিয়ে তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে।

ইসলামপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মো. খায়রুল আলম বলেন, আমাদের স্টেশনে ডুবুরি না থাকায় জামালপুর জেলা কার্যালয়ে যোগাযোগ করি। সেখান থেকে জানানো হয় জামালপুর ফায়ার সার্ভিসের মাত্র একজন ডুবুরি যিনি কভিড-১৯ সংক্রমণ পরবর্তী অসুস্থতায় ভুগছেন। ডুবুরি পাওয়া যায়নি বিধায় আমরা ঘটনাস্থলে যাইনি। বিষয়টি আমি ইসলামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি।

ইসলামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজেদুর রহমান বলেন, ইসলামপুর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শিক্ষার্থী হাসানুল ইসলাম সিয়ামকে মৃত ঘোষণার পর তার মরদেহ স্বজনরা বাড়িতে নিয়ে গেছে।