গুচ্ছ ভর্তি পদ্ধতি, ২২ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সর্বোচ্চ আসন শূন্য ইবি'র


IU Correspondent | Published: 2023-09-29 11:53:58 BdST | Updated: 2024-06-14 15:40:38 BdST

গুচ্ছের অধীনে চার ধাপে শিক্ষার্থী ভর্তি শেষে গত ২ সেপ্টেম্বর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের অনার্স প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু হয়েছে। তবে ক্লাস শুরু হলেও বিশ্ববিদ্যালয়টিতে এখনও ২৪১টি আসন ফাঁকা আছে। ২০২২-২৩ সেশনে অনার্স প্রথম বর্ষে ভর্তিতে গুচ্ছভুক্ত ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসন শুন্য পড়ে আছে ইবি'র। শূন্য আসনের দিক দিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় যথাক্রমে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (২১৫টি) এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (১৯০টি)। শিগগিরই খালি আসনগুলো পুরণ করা হবে জানা গেছে। গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার টেকনিক্যাল কমিটি সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

টেকনিক্যাল কমিটির তথ্য মতে, গুচ্ছভুক্ত ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন পর্যন্ত ২ হাজার ২২০টি আসন শূন্য আছে। শূন্য আসন পূরণের নিমিত্তে শিঘ্রই ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে। এর মধ্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন খালি রয়েছে ১৬৭টি, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮৭টি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭টি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৭টি, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬৩টি শূন্য রয়েছে।

এছাড়াও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ৯৭টি, হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫৪টি, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৯০, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২৯, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৭, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩৩, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩৪, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৮, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৭, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২১, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭৩, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫টি আসন ফাঁকা রয়েছে।

এদিকে গুচ্ছের খালি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবজেক্ট মাইগ্রেশন বন্ধের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এরপর নতুন করে স্টুডেন্ট প্যানেলে ভর্তিচ্ছুদের তথ্য নিয়ে চূড়ান্ত ভর্তিকার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। গত বুধবার রাত ৮টায় অনুষ্ঠিত টেকনিক্যাল কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্র।

সভা সূত্রে জানা গেছে, আগামী শনিবারের মধ্যে সাবজেক্ট মাইগ্রেশন শেষ করা হবে। এরপর অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চায় তাদের স্টুডেন্ট প্যানালে লগ-ইন করে 'ইয়েস' অপশনে টিক দিতে হবে। এরপর ইয়েস অপশনে টিক দেয়া শিক্ষার্থীদের মেধাক্রম, পছন্দক্রম অনুযায়ী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সাবজেক্ট সিলেক্ট করে দেয়া হবে। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা ওই বিষয়ে ভর্তি হবেন। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে এই প্রক্রিয়া শেষ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এর আগে গত ২২শে আগস্ট গুচ্ছের শেষ ধাপের ভর্তি নেওয়া হয়। ভর্তি বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী এবার চার ধাপে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। তবে অধিক সংখ্যক আসন শূন্য থাকায় ফের ভর্তির সুযোগ দিতে যাচ্ছে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটির আহবায়ক এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, খালি সিটগুলো কীভাবে পূরণ হবে, সে বিষয়ে টেকনিক্যাল কমিটি প্রস্তাবনা দেবে।

উল্লেখ্য, আসন খালি রেখেই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের নবীন শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু হয়েছে গত ২ সেপ্টেম্বর। ওইদিন নিজস্ব আয়োজনে নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেয় স্ব স্ব বিভাগ।